• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই, ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১, ১১ মুহররম ১৪৪৫

বরগুরায় উঁচু জোয়ার-বৃষ্টিতে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত


বরগুনা প্রতিনিধি
প্রকাশিত: আগস্ট ১৪, ২০২২, ০৭:১৪ পিএম
বরগুরায় উঁচু জোয়ার-বৃষ্টিতে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপের প্রভাবে উপকূলীয় অঞ্চলে বায়ুচাপ পার্থক্যের আধিক্য বিরাজ করছে। পূর্ণিমা ও বায়ুচাপের প্রভাবে কোথাও কোথাও ঝড়ো হাওয়া ও বৃষ্টি হচ্ছে।

লঘুচাপের কারণে গত মঙ্গলবার থেকে বরগুনায় বৃষ্টি অব্যাহত রয়েছে। বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে জেলার প্রধান তিনটি নদী পায়রা, বিষখালী ও বলেশ্বরের জোয়ারের পানি।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, জোয়ারের পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় বরগুনার বিভিন্ন নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে বসতবাড়ি তলিয়ে গেছে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছে নিম্নাঞ্চলের মানুষেরা। ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধ ভাঙার আতঙ্কে রয়েছেন অনেকে।

বরগুনা পানি উন্নয়ন বোর্ডের দেওয়া তথ্য মতে, শনিবার (১৩ আগস্ট) সকাল ৯টা থেকে রোববার (১৪ আগস্ট) সকাল ৯টা পর্যন্ত ৫১ দশমিক ৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। জেলার বিষখালী, পায়রা ও বলেশ্বর নদীর পানি বিপৎসীমার ৭২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এছাড়াও গত ২৪ ঘণ্টায় ৫১ দশমিক ৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।

বরগুনা জেলা ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী বলেন, “লঘুচাপের সংকেত পাওয়ার পর মাছ ধরার ট্রলারগুলো নিরাপদ আশ্রয়ে রয়েছে।”

ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচি (সিপিপি) বরগুনার রেডিও অপারেটর গোলাম মাহমুদ বলেন, “বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপের কারণে বরগুনায় বৃষ্টি হচ্ছে। তবে, এ বৃষ্টিপাত কয়দিন থাকবে তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না।”

জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী নূরুল ইসলাম বলেন, “ভারী বৃষ্টি, পূর্ণিমা ও বৈরী আবহাওয়ার কারণে পানি বাড়ায় নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। বিষখালী, পায়রা ও বলেশ্বর নদীর পানির উচ্চতা গত কয়েক দিন ধরে বেশি রয়েছে। বৃষ্টি হ্রাস না পাওয়া পর্যন্ত প্রত্যেক জোয়ারে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

আবহাওয়া অফিসের পূর্বাভাস অনুযায়ী ঝড়ের শঙ্কায় দেশের সব সমুদ্র বন্দরগুলোতে তিন নম্বর এবং নদীবন্দরগুলোর কোথাও দুই নম্বর ও কোথাও এক নম্বর সতর্কতা সংকেত চলছে।

পূর্বাভাসে জানানো হয়, নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ২-৪ ফুট অধিক উচ্চতার বায়ুতাড়িত জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হতে পারে। এজন্য উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত সকল মাছ ধরা নৌকা ও ট্রলারসমূহকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি থেকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে।

Link copied!