• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৬ জুলাই, ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১, ১৯ মুহররম ১৪৪৫

জলে ফুল ভাসিয়ে বিজুর আহবান


রাঙ্গামাটি প্রতিনিধি
প্রকাশিত: এপ্রিল ১২, ২০২২, ১১:৫৬ এএম
জলে ফুল ভাসিয়ে বিজুর আহবান

ফেলে আসা বছরে অশান্তির রক্ত ঝরেছে পাহাড়ে। সেই রক্ত মুছে নিয়ে রক্তজবা, মধু মালতী, বিজু আর নয়নতারা ভেসে গেল কাপ্তাই হ্রদে। আর কর্ণফুলী নদী জলে ভেসে গেল নতুন ভোরের সূর্যকে স্বাগত জানাতে।
 
মঙ্গলবার (১২ এপ্রিল) নতুন বছরকে বরণ করে নিতে পাহাড়ে এখন চাকমাদের বিজুর গান। এ উৎসবের প্রথম অংশ শুরু হয় নদীতে ফুল ভাসিয়ে। চাকমা রীতিতে এই ফুল ভাসানের নাম ‘ফুল বিজু’। আর ত্রিপুরারা বলে ‘হারি বৈসুক’ মারমা বলে ‘পাইনছোঁয়াং’। তবে মারমাদের পাইনছোঁয়াং হবে ইংরেজি ১৩ এপ্রিল (বুধবার)।  

দেশের তিন পার্বত্য জেলা খাগড়াছড়ি, বান্দরবান ও রাঙ্গামাটির ১৪টি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর মানুষ এখন বর্ষবরণ ও বিদায়ের এই উৎসবে মাতোয়ারা। পাহাড়িদের জীবনে এটাই বছরের প্রধান সামাজিক উৎসব।

তাদের বিশ্বাস, দেবতার উদ্দেশ্যে ফুল ভাসালে পুরানো বছরের গ্লানি থেকে মুক্তি মেলে। তাই মঙ্গলবার ভোরের আকাশে রক্তিম সূর্যের আগমনের সঙ্গে সঙ্গে রাঙামাটির চাকমা ও ত্রিপুরা তরুণ-তরুণীরা ফুলের ডালা হাতে দলে দলে হাজির হলেন কাপ্তাই হ্রদে। 

এদিন সবজি দিয়ে রান্না করা পাঁচন, পিঠা আর নানা মুখরোচক খাবারের আয়োজন থাকেন তারা। নতুন পোশাক পরে, পাড়া বেড়িয়ে, নেচে গেয়ে চলে আনন্দ উৎসব। বয়স্করা অষ্টশীল পালনের জন্য মন্দিরে যান। তরুণরা অংশ নেন ‘ঘিলাখেলা’ নামে জনপ্রিয় একটি খেলায়।

চাকমারা তিন ভাগে ভাগ করে বিজু উৎসব পালন করেন। চৈত্র মাসের ২৯ তারিখে ‘ফুল বিজু’, ৩০ তারিখে ‘মূল বিজু’ এবং বৈশাখের প্রথম দিনে ‘গজ্যাপজ্যা বিজু’ পালন করা হয়।

চৈত্র মাসের শেষ দুই দিনের প্রথম দিনকে ‘হারি বুইসুক’ এবং শেষ দিনকে ‘বুইসুকমা’ বলে। আর নববর্ষের প্রথম দিনটি হল ‘বিসিকাতাল’।
এ উৎসবকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার রাঙামাটি শহরের গর্জনতলী এলাকায় কাপ্তাই হ্রদে ফুল ভাসান ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর তরুণ-তরুণীরা। পরে জ্বালানো হয় মঙ্গল প্রদীপ।

উৎসবের প্রথমদিন ত্রিপুরা ও চাকমা ছেলেমেয়েরা গাছ থেকে ফুল তুলে ঘর সাজান। ঝুড়িতে ধান নিয়ে গ্রামে গ্রামে ঘুরে মোরগ-মুরগিকে ছিটিয়ে দেন। এ দিন গৃহপালিত সব প্রাণীকে খুব ভোরে ছেড়ে দেওয়া হয়। পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন কাপড় পরে ছেলেমেয়েরা গ্রামে ঘুরে বেড়ায়। খাবারের আয়োজনে থাকে হরেক রকম পিঠা।

ফুল বিজুর দিনে চাকমারা বিজুর ফুল তুলে তা দিয়ে ঘর সাজান। পরে সে ফুল নদীতে ভাসিয়ে দেওয়া হয়। ফুল ভাসানোর পর্ব শেষে তরুণ-তরুণীরা ঘরে ফিরে বড়দের প্রণাম করে আশীর্বাদ নেন। পাড়ার বয়স্কদের শরীরে পানি ঢেলে তাদের আশীর্বাদ কামনা করে। তাদের জন্য দেওয়া হয় নতুন পোশাক।

বিজুর ফুল উৎসবে কথা হয় নয়ননিতা চাকমার সঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, গঙ্গা মাকে স্মরণ করে পানিতে ফুল ভাসিয়ে এসেছেন তিনি।

নয়ননিতা বলেন, “ফুল বিজু আমাদের আদি থেকে চলছে আসছে। আমরা এ ফুল বিজুর মধ্য দিয়ে নিজেদের ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে চেষ্টা করছি।”

জিশিকা চাকমা বললেন, “পুরোনো বছরের সব গ্লানি ধুয়ে মুছে ফেলার জন্যই আমাদের এ ফুল ভাসানো। আমরা দীর্ঘকাল ধরে ফুল ভাসিয়ে আসছি। আর ফুল বিজুর মধ্য দিয়েই আমাদের মূল বিজু উৎসবের শুরু হয়।”

Link copied!