• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৬ জুলাই, ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১, ১৯ মুহররম ১৪৪৫

‘শেখ হাসিনার জন্যই আজ গৌরবের ইতিহাস’


সংবাদ প্রকাশ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২২, ০৩:৩৩ পিএম
‘শেখ হাসিনার জন্যই আজ গৌরবের ইতিহাস’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্ম বলেই বাঙালি জাতির মুক্তির শৃঙ্খলকে উজ্জীবিত করে আমাদের প্রগতির পদে পদে গৌরবের ইতিহাস রচনার যুগপৎ সৃষ্টি হয়েছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেড জাহাঙ্গীর কবির নানক।

বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে ‘শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদ’ কর্তৃক আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।  

প্রধানমন্ত্রীর প্রসংসা করে জাহাঙ্গীর নানক বলেন, “সকল অশনি শক্তিকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে, স্বজন হারানোর বেদনা, পিতৃহত্যার বদলা, দেশের মানুষের জ্বরা গ্লাণিকে সময়ের তাড়নায় এক চিলতে হাসিতে রূপান্তরের প্রত্যয় প্রবাদ নিয়ে এই বঙ্গবন্ধুর যোগ্য কন্যাই নিজ দেশে প্রত্যাবর্তন করেছিলেন। স্বৈরাচারী সরকার, সন্ত্রাসের ভয়াল করালগ্রাস, অগণতান্ত্রিক সামরিক পেটোয়া বাহিনী, দুষ্টের দৌরাত্ম্য সকল কিছুকে যিনি আলিঙ্গন করেছিলেন পিতা মুজিবের স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণের নেপথ্যে দিগ্বিজয়ী সারস হয়ে।

তিনি বলেন, “বঙ্গবন্ধুর রাষ্ট্রীয় মৌলনীতিকে বাস্তবায়ন, দেশে উন্নয়ন অগ্রযাত্রা সাধন, জঙ্গীবাদ উৎখাতে অকুতোভয় দুঃসাহসী অভিযাত্রিক হিসেবে যিনি নিজের জাত চিনিয়ে বিশ্ববুকে নন্দিত হয়েছেন অপরাজেয় লৌহ মানবী হয়ে তিনিই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।”

জাহাঙ্গীর নানক বলেন, “শেখ হাসিনাকে মোট ১৯ বার হত্যার চেষ্টা করে আজ হন্তারক গোষ্ঠী বিশ্রামের পাঁয়তারা খোঁজে, আর জননেত্রী শেখ হাসিনা উন্নয়নের সোপান বেয়ে বাংলার মানুষের ভাগ্যোন্নয়নের স্বপ্নের সিঁড়ির দিকে দুর্দণ্ডপ্রতাপে ধাবিত হয়।”

দেশের উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অবদানের কথা তুলে ধরে নানক বলেন, “প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, লিঙ্গ সমতা, কৃষি, দারিদ্র্যসীমা হ্রাস, গড় আয়ু বৃদ্ধি, রপ্তানীমুখী শিল্পায়ন। ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল, পোশাক শিল্প, ঔষধ শিল্প, রপ্তানী আয় বৃদ্ধিসহ নানা অর্থনৈতিক সূচক, পদ্মা সেতু, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র, পায়রা গভীর সমুদ্র বন্দর, ঢাকা মেট্রোরেলসহ দেশের মেগা প্রকল্পসমূহসহ আগামী ১০০ বছরের মাস্টারপ্ল্যান গৃহীত হয়েছে।”

তিনি আরও বলেন, “বর্তমান সময়ে দেশের মানুষ নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পায়, চিকিৎসা সেবায় অভূতপূর্ব বৈপ্লবিক সমৃদ্ধির সাক্ষী হয়, মাথাপিছু আয়ে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোকে বুড়ো আঙুল দেখায়, শিক্ষায় সমৃদ্ধি পরিগনিত হয়, বাস্তুহারা মানুষেরা আবাসন পায়, দেশের অগ্রগতির প্রাকৃত স্বরূপ বিশ্বের দরবারে উন্মোচন হয় কেবলই শেখ হাসিনার রাষ্ট্রনায়োকচিত নেতৃত্বের দূরদর্শিতায়। দেশের মানুষের মৌলিক অধিকার নিশ্চিতের এই স্বপ্নই তো জাতির জনক তার জীবনে বাস্তবিক রূপায়নের সার্বিক রূপকল্পের কথা দেশবাসীকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। আজ তা সফলভাবে বাস্তবায়ন হচ্ছে।”

Link copied!