• ঢাকা
  • শনিবার, ২০ জুলাই, ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১, ১৩ মুহররম ১৪৪৫

মোটা চাল খাওয়ার পরামর্শ ভোক্তা অধিদপ্তরের


সংবাদ প্রকাশ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৬, ২০২২, ০৭:২৮ পিএম
মোটা চাল খাওয়ার পরামর্শ ভোক্তা অধিদপ্তরের

মানুষকে মোটা চাল খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এ এইচ এম সফিকুজ্জামান। তিনি বলেন, “আমাদের মোটা চাল খাওয়ার অভ্যাস করা উচিত। মোটা চালের ভাত খেতেও মজা এবং মোটা চালের ভাত খেলে মিনিকেট নামের চাল তৈরির সুযোগ থাকবে না।”

মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে অধিদপ্তরের কার্যালয়ে সুপারশপ ব্যবসায়ী ও ভোক্তাদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন।

কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) ও আগোরা, স্বপ্ন, ইউনিমার্ট ইত্যাদি সুপারশপের প্রতিনিধিরা এতে অংশ নেন। সভায় সুপারশপের প্রতিনিধিরা চাল, মসুর ডাল, আটা, ময়দা, সুজি, লবণ—এসব পণ্যের বিক্রয়মূল্যের তথ্য উপস্থাপন করেন।

ভোক্তা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বলেন, “খাদ্য মন্ত্রণালয় ইতোমধ্যে ঘোষণা দিয়েছে, মিনিকেট চাল প্রতারণা বন্ধ করতে হবে। মিনিকেট চাল প্রতারণা বন্ধে ভোক্তা সংরক্ষণ অধিদপ্তর অভিযানে নামবে এবং মিনিকেট বলতে কোনো চাল বাজারে থাকবে না। ভোক্তারা মোটা চাল খাওয়ার অভ্যাস করলে মিনিকেট চাল আর উৎপাদিত হবে না।”

সভার পর এ এইচ এম সফিকুজ্জামান সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে বলেন, “তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, কিছু কিছু ক্ষেত্রে সুপারশপগুলো ২৯ শতাংশ মুনাফা করে। এটা অতিরিক্ত। এ ছাড়া সুপারশপগুলো ৫৮ টাকার চাল প্রিমিয়াম, সুপার প্রিমিয়াম নামে প্যাকেটজাত করে ৭৮ টাকায় বিক্রি করে।”

এদিকে বুধবার অধিদপ্তর আরেকটি মতবিনিময় সভা ডেকেছে। এতে সাবান, ডিটারজেন্ট, টুথপেস্ট, লিকুইড ক্লিনার ইত্যাদি পণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ার কারণ অনুসন্ধান করা হবে। এসব পণ্যের উৎপাদক প্রতিষ্ঠানগুলোকে বলা হয়েছে, তারা যাতে পণ্যগুলোর দুই বছর আগের দাম, ছয় মাস আগের দাম ও বর্তমান দামের চিত্র নিয়ে বৈঠকে উপস্থিত হয়।

Link copied!