• ঢাকা
  • রবিবার, ১৯ মে, ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১,

ফেলে যাওয়া ব্যাগের সূত্র ধরে খুনি গ্রেপ্তার


সংবাদ প্রকাশ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: জুন ৬, ২০২৩, ১২:০৬ পিএম
ফেলে যাওয়া ব্যাগের সূত্র ধরে খুনি গ্রেপ্তার

রাজধানীর খিলক্ষেতে একটি ফেলে যাওয়া ব্যাগের সূত্র ধরে মেছের আলী নামের এক ব্যক্তির হত্যারহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

গ্রেপ্তার ব্যক্তির নাম মো. রমজান আলী। সোমবার রাতে গাজীপুর জেলার শ্রীপুর থানার মাওনা এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গুলশান বিভাগের ক্যান্টনমেন্ট জোনের অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার ইফতেখায়রুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ২৩ মে বিকেলে খিলক্ষেত থানার বরুয়ার বোয়ালিয়া খালসংলগ্ন আশিয়ান হাউজিং প্রজেক্টের বালুর চরে মেছের আলীর মৃতদেহ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় খিলক্ষেত থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা করা হয়। মামলাটি তদন্তকালে ঘটনাস্থলে একটি ব্যাগ পাওয়া যায়। সেই ব্যাগ থেকে লোহার কাচি, কম্বলসহ কিছু নতুন-পুরোনো কাপড় ও মিনা নামে একজনের জন্মনিবন্ধন ও টিকা কার্ড পাওয়া যায়।

ইফতেখায়রুল ইসলাম আরও বলেন, প্রাপ্ত ব্যাগ ও ঘটনাস্থলের আশপাশের সিসিটিভি ফুটেজ বিশ্লেষণ করা হয়। জন্মসনদের পরিপ্রেক্ষিতে মিনা ও তার স্বামী শাহাবুদ্দিনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। মিনা ও তার স্বামী শাহাবুদ্দিন জানান, ঈদুল ফিতরের কয়েক দিন আগে শাহাবুদ্দিন নেত্রকোনায় যাওয়ার জন্য নারায়ণগঞ্জ থেকে কমলাপুর রেলস্টেশনে যান। সে সময় রমজান আলী নামের এক বয়স্ক লোক তাকে একসঙ্গে নেত্রকোনায় যাওয়ার কথা বলেন। রমজান আলী ট্রেনের জন্য অপেক্ষা না করে কারওয়ান বাজার থেকে বাসে করে যাওয়া বিকল্প রাস্তার কথা বলেন। শাহাবুদ্দিন সরল বিশ্বাসে রমজান আলীর সঙ্গে কারওয়ান বাজার যান। সেখানে দুজন চা পান করেন। এরপর শাহাবুদ্দিন তন্দ্রাচ্ছন্ন হলে রমজান আলী ব্যাগ ও টাকা নিয়ে চলে যান।

অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার বলেন, গত ২০ মে মেছের আলী বাসা থেকে বের হলে ওই দিন রাতে বিমানবন্দর রেলস্টেশনে রমজান আলীর সঙ্গে পরিচয় হয়। এরপর রমজান আলী ও মেছের আলী বড়ুয়া রেলগেট এলাকায় আসেন। এ সময় রমজান আলীর সঙ্গে শাহাবুদ্দিনের ব্যাগটি ছিল। মেছের আলীকে নিয়ে রমজান আলী রেলগেটের সামনের এক দোকানে চা পান করেন। পরে তারা বরুয়ার বোয়ালিয়া খালসংলগ্ন আশিয়ান হাউজিং প্রজেক্টের বালুর চরে যান।  একপর্যায়ে মেছের আলী অচেতন হয়ে গেলে গেলে রমজান আলী মেছের আলীর সঙ্গে থাকা টাকা লুট করে পালিয়ে যান। এ সময় রমজান আলী মনের অজান্তে তার সঙ্গে থাকা ব্যাগটি ঘটনাস্থলে রেখে চলে যান। এই ব্যাগের সূত্র ধরেই তাকে শনাক্ত করা হয়।

খিলক্ষেত থানায় কার হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার রমজান আলীকে আদালতে প্রেরণ করলে তিনি দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন বলে জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।

Link copied!