• ঢাকা
  • বুধবার, ২৯ মে, ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২০ জ্বিলকদ ১৪৪৫

সহকর্মীর সঙ্গে সম্পর্ক খারাপ হলে কী করবেন


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: এপ্রিল ১৪, ২০২৪, ০১:৫২ পিএম
সহকর্মীর সঙ্গে সম্পর্ক খারাপ হলে কী করবেন
প্রতীকী ছবিঃ সংগৃহীত

দিনের বড় একটা অংশ আমরা কাটাই কর্মস্থলে। কর্মক্ষেত্রে নানা ধরনের মানুষ থাকে। প্রত্যেকের আলাদা আলাদা বৈশিষ্ট। এইসব ভিন্ন ভিন্ন ধরণের মানুষের সঙ্গে মানিয়ে চলতে হয়। তবে একসঙ্গে কাজ করতে গিয়ে অনেক সহকর্মীদের মধ্যে মতের অমিল তৈরি হয়। এই অমিল থেকে যদি বিভেদের সৃষ্টি হয় কিংবা নষ্ট হয় কাজের পরিবেশ, তবেই মুশকিল। যতই সম্পর্ক খারাপ হয় কিংবা কাছের সম্পর্কই তৈরি হয়, আমাদের আমাদের উচিত পেশাদার পরিবেশে পেশাদার ব্যবহার করা। সবাইকে শ্রদ্ধা করে, নিজের কাজকে মূল ফোকাসে রেখে কাজের সময়টা ব্যবহার করা। বিষাক্ত পরিবেশে নিজের কর্মদক্ষতা প্রশ্নবিদ্ধ হতে পারে। আবার সহকর্মীর খারাপ আচরণের কারণে আপনি আত্মবিশ্বাস হারাতে পারেন, দুশ্চিন্তা কিংবা বিষণ্নতায় ভুগতে পারেন। এমন পরিস্থিতি সামলাতে কী করবেন?

অভিযোগ বা নালিশ নয়  
কোনো সহকর্মীর সঙ্গে যদি খারাপ সম্পর্ক তৈরি হয় তখন অন্য সহকর্মীর কাছে কোনো অভিযোগ করবেন না। যদি কেউ আপনার সঙ্গে অন্যায় করে তবেই আপনি নির্দিষ্ট জায়গায় অভিযোগ করুন। অন্য সহকর্মীদের কাছে কিংবা বাড়ি ফিরে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে ক্রমাগত এ বিষয়ে কথা বলতে থাকেন, তাহলে আপনি ওই ঘটনার ভেতর থেকে বের হতে পাবেন ন।

ইতিবাচক মনোভাব বজায় রাখুন
সবসময় চেষ্টা করুন হাসিখুশি থাকার। চারপাশ থেকে নেতিবাচকতা যেন নিজের ভেতর আসতে না পারে সেদিকে খেয়াল রাখুন। কারো সঙ্গে খারাপ সম্পর্ক তৈরি হলে সেটা নিয়ে অতো মেজাজ খারাপ না করে নিজের মত করে সময় কাটান। কাজে মনোযোগ দিন। প্রয়োজনে হেডফোনে গান শুনুন কিংবা একটু হেঁটে আসুন বাইরে থেকে।

আত্মবিশ্বাস বাড়ান
অন্যের কথায় প্রভাবিত না হয়ে নিজের কথা শুনুন।  কেউ যদি আপনার সঙ্গে নেতিবাচক আচরণ করেন আর আপনি যদি সে বিষয় নিয়েই বিরক্ত হন, তাহলে তো আপনি ক্ষতিগ্রস্ত হবেন, জীবনযুদ্ধে আপনার জয় নিশ্চিত করতে হলে আপনাকে আত্মবিশ্বাস বাড়াতেই হবে।

নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করুন, অন্যকে নয়
একসঙ্গে কাজ করতে গিয়ে অনেক সময়ই আপনার সহকর্মীর সঙ্গে মতের অমল হতে পারে তখন অহেতুক তর্ক বা কথা–কাটাকাটিতে যাবেন না। আপনার কথা আপনি যুক্তি দিয়ে বুঝাতে পারেন, যদি তিমি বুঝতে না চান তাহলে মেজাজ খারাপ করবে না। নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করবেন। সহকর্মীর নেতিবাচক আচরণের পরিপ্রেক্ষিতে আপনি ইতিবাচক থাকবেন।

সৌজন্যবোধ
সবার সঙ্গে সৌজন্যবোধ বজায় রেখে চলতে হবে। যতই আপনার সহকর্মীর সঙ্গে আপনার খারাপ সম্পর্ক থাকুক না কেন তার পদোন্নতিতে তাকে শুভেচ্ছা জানান। এতে সম্পর্ক ভালোও হয়ে যেতে পারে।

নিজের খেয়াল রাখুন
শখের কাজে সময় দিন। ব্যায়াম ও ধ্যান করতে পারেন। কাছের মানুষের সঙ্গে সময় কাটান। সবকিছুর পরও মানসিকভাবে ভেঙে পড়লে মনোরোগবিশেষজ্ঞের শরণাপন্ন হোন। আর আনুষ্ঠানিকভাবে জানিয়ে রাখুন মানবসম্পদ বিভাগকে। সম্ভব হলে অভ্যন্তরীণ বিভাগ পরিবর্তনও করতে পারেন।

Link copied!