• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৪ মে, ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ১৬ জ্বিলকদ ১৪৪৫

সন্তান অঙ্কে কাঁচা, যেভাবে ভয় কাটাবেন


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: এপ্রিল ১৫, ২০২৪, ০৩:২৬ পিএম
সন্তান অঙ্কে কাঁচা, যেভাবে ভয় কাটাবেন
ছবি: সংগৃহীত

সন্তানকে মানুষের মতো মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার জন্য শিক্ষার বিকল্প নেই। তাই সন্তান বড় হলেই শুরু হয় স্কুলে যাওয়া। অনেক ছোট বয়স থেকেই এখন স্কুলে পাঠানো হয়। প্রিস্কুল থেকেই শুরু হয়ে যায় বাচ্চাকে শেখানো। এরপর ধীরে ধীরে উপর ক্লাসে উঠে। সেই সঙ্গে বাড়ে লেখাপড়ার চাপ। অনেক বাচ্চা অঙ্ক আর ইংরেজির শেখার প্রতি একটু ভীতু হয়। তারা ক্লাসে অঙ্ক দেখলেই নার্ভাস হয়ে যায়। কেউ কেউ আছে পরীক্ষার আগের সারারাত জেগে থেকে অঙ্ক আয়ত্ত করেও তা পেরে উঠে না। বাচ্চাদের লেখাপড়ার প্রতি এই ভীতি অনেক বড় হয়েও থেকে যায়। তাই ছোট থেকেই এই ভীতি কাটানোর চেষ্টা করা উচিত।

বাচ্চার অঙ্কের প্রতি ভীতি কমাতে কিছু বিষয়ে যত্নশীল  হতে হবে। চলুন জেনে নেই সেই বিষয়গুলো কী কী_

বাচ্চা অঙ্কে ভালো নয়  মানে কোনো বিষয়েই ভালো নয়-এমন কথা মনে করিয়ে দেওয়া ঠিক নয়। বাড়ির বড়রা প্রায়ই এমন কাজ করে থাকেন। এতে বাচ্চা আরও বেশি হীনমন্যতায় ভোগে। এতে লেখাপড়ায় অনীহা চলে আসে। বাচ্চার ভীতি আরও বেড়ে যায়। তাই এমন কথা বাচ্চার সামনে বার বার বলা মোটেও উচিত নয়।

বাচ্চা যে বিষয়ে বা যে অঙ্ক করতে ভয় পায়, তা বারবার মনে করানো ঠিক নয়। অঙ্ক যে খুব কঠিন বিষয় নয় সেই উপলব্ধিটা সন্তানকে বোঝাতে শুরু করুন।

বাচ্চা পড়াশোনায় যে বিষয়ে ভালো সেই বিষয়ে আপনিও উত্সাহ দিন। পাশাপাশি অঙ্কের বিষয়টি সহজ করে তুলে ধরুন। বাংলা-ইংরেজি-ইতিহাস ভালবাসলে এগুলো পরিয়ে এরপর অঙ্ক নিয়ে বসুন। বাচ্চার না পারার ভীতি কাটিয়ে উঠবে। নয়তো ভীতি ঢুকে গেলে বাচ্চার সহজাত ভাল গুণকে নষ্ট করে দিতে পারে।

বাচ্চাকে খেলার ছলে অঙ্ক শেখান। এক সমীক্ষায় জানা গিয়েছে–ব্লক গেম, ধাঁধা, সুদোকু, কার্ড গেমের মাধ্যমে অঙ্কের প্রতি আগ্রহ তৈরি হয়। বাচ্চাদের খেলায় এসব যোগ করুন। বাচ্চার আগ্রহ বাড়বে।

বাড়ির যেকোনো কাজকর্মে বাচ্চার সহযোগিতা নিন। আর সেসব কাজ কর্মে অঙ্ক ঢুকিয়ে দিন। যেমন বাজার করার সময় বাচ্চাকে সঙ্গে নিয়ে যেতে পারেন। সেখানে টাকাপয়সার হিসাব বাচ্চাকে করতে দিন। সে বেশ মজা পাবে।

অঙ্ক বা অন্য কোনো বিষয়ে না পারার জন্য সন্তানকে বকাঝকা করবেন না। অন্য বাচ্চার সঙ্গে তুলনা করবেন না। এতে বাচ্চার আত্মবিশ্বাস আরও নষ্ট হয়ে যেতে পারে। বরং আপনার বাচ্চার মধ্যে হয়তো অন্য বিশেষ গুণ রয়েছে। যা সেও খুব ভালো পারে। সেই বিষয়েই উত্সাহ দিন। মনে রাখবেন, বড়দের দৃষ্টিভঙ্গি বদলালেই বাচ্চার মেধা বিকাশের পরিবর্তন আসবে।

Link copied!