• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই, ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১, ১১ মুহররম ১৪৪৫

শ্রীলঙ্কার পদত্যাগকারী গভর্নরের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: এপ্রিল ৭, ২০২২, ০৬:০৭ পিএম
শ্রীলঙ্কার পদত্যাগকারী গভর্নরের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা
ছবি : সিলন টুডে

শ্রীলঙ্কার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সদ্য পদত্যাগ করা গভর্নর অজিথ নিভারদ কারবারালের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। তিনি আগামী ১৮ এপ্রিল পর্যন্ত দেশের বাইরে কোথাও যেতে পারবেন না।

বৃহস্পতিবার (৭ এপ্রিল) থেকে তিনি এ নিষেধাজ্ঞার আওয়াতায় থাকবেন। দেশটির কলম্বো ম্যাজিস্ট্রেট আদালত এ নির্দেশনা দিয়েছেন।

সিলন টুডে বলছে, সদ্য পদত্যাগ করা কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর কারবারালের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ দায়ের করেন দেশের সাংসদ রজিথ কীর্থি। তার অভিযোগের ভিত্তিতে কারবারালের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞার আদেশ দিয়েছেন অতিরিক্ত ম্যাজিস্ট্রেট হর্শনা রাজারত্ন।

৪ এপ্রিল কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর পদ থেকে সরে যাওয়ার ঘোষণা দেন কারবারাল। এর পরেই শ্রীলঙ্কার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাবেক (সিবিএসএল) কর্মকর্তা পি. নন্দলাল ওয়েরাসিংহকে গভর্নর হওয়ার প্রস্তাব করেন প্রেসিডেন্ট গোটাবায়া রাজাপাকসে। কিন্তু এখনো এ পদে কাউকে নিয়োগ দেওয়া হয়নি।

এর আগে ২০০৬ সালের জুলাই থেকে ২০১৫ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত প্রায় এক দশক ধরে ব্যাংকের ১২তম গভর্নর পদে দায়িত্বে ছিলেন তিনি। প্রথম মেয়াদে শ্রীলঙ্কার অর্থনীতির উন্নয়নে নানা ভূমিকা রাখেন তিনি। পরে আবার গত সেপ্টেম্বরে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ১৬তম গভর্নর হিসেবে নিযুক্ত হন অজিথ নিভার্ড ক্যাবরাল।

কয়েক দশকের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ অর্থনৈতিক সংকটে আছে দক্ষিণ এশিয়ার দ্বীপরাষ্ট্র শ্রীলঙ্কা। দেশটি জন বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে আছে। বিক্ষোভ দমনে কয়েক দফা কারফিউ ও জরুরি অবস্থা জারি করে সরকার। যদিও এসব নিষেধাজ্ঞা ধাপে ধাপে উঠিয়ে নেওয়া হয়েছে।

জনরোষের প্রভাব পড়েছে দেশের সংসদ ও মন্ত্রণালয়ে। দেশটির মন্ত্রীসভার ২৬ জন মন্ত্রী একযোগে পদত্যাগ পত্র জমা দেন। এরপর দেশের ৪০ জন সাংসদ ক্ষমতাসীন জোট ছেড়ে যান। তারা সংসদে স্বতন্ত্র প্রতিনিধিত্ব করার জন্য জোট ছেড়েছেন।

২০১৯ সাল থেকে রাজাপাকসে ও তার পরিবারের সদস্যরা দেশটির প্রশাসনে রয়েছে। কয়েক দশকের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ অর্থনৈতিক সংকট মোকাবেলা করছে দক্ষিণ এশিয়ার দ্বীপরাষ্ট্র শ্রীলঙ্কা। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিসহ নানা অনিয়মের বিরুদ্ধে দেশজুড়ে চলছে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ।

Link copied!