• ঢাকা
  • সোমবার, ২৪ জুন, ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১, ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

স্বাস্থ্যবিধি মানতে বলায় পুলিশকে ধাওয়া, ১২ জনের নামে মামলা


কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি
প্রকাশিত: জুলাই ২৬, ২০২১, ০৩:১৩ পিএম
স্বাস্থ্যবিধি মানতে বলায় পুলিশকে ধাওয়া, ১২ জনের নামে মামলা

কুড়িগ্রামে লকডাউনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে এবং মাস্ক পরতে বলায় পুলিশের দুই সদস্যকে লাঞ্ছিত এবং ধাওয়া দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় পুলিশ সদস্য বাসায় ঢুকলেও বাসার গেটে হামলা চালায় উত্তেজিত জনতা। 

রোববার (২৫ জুলাই) কুড়িগ্রামের কচাকাটা থানা এলাকার কচাকাটা বাজারে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় সোমবার (২৬ জুলাই) ১২জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আসামি করে মামলা করেছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে রোববার সন্ধ্যার দিকে কচাকাটা বাজারে দায়িত্বরত ছিলেন কচাকাটা থানা পুলিশের উপপরিদর্শক (এএসআই) বুলবুল ইসলাম ও কনস্টেবল আজমাইন। এ সময় গরু হাটের পাশে মাস্কবিহীন মানুষের জটলা দেখলে সেখানে গিয়ে লোকজনকে স্বাস্থ্যবিধি মানতে বলার সময় দু’একজন লোক দৌড়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে ভিড়ে থাকা মজিবর নামের একজন পড়ে যায়। এ ঘটনা থেকে উত্তেজনরা সৃষ্টি করে কিছু লোক। পরে পুলিশের দুই সদস্যকে লাঠি হাতে ধাওয়া দিলে জনরোষ থেকে বাঁচতে কচাকাটা বালিকা স্কুলের কাছে এএসআই বুলবুল ইসলামের বাসায় ঢুকলে তার গেটে উত্তেজিত জনতা লাঠি হাতে অবস্থান নেয়। 

এক সময় গেট ভেঙে বাসায় প্রবেশের চেষ্টা করে জনতা। পরে খবর পেয়ে থানা থেকে পুলিশ সদস্যদের নিয়ে ঘটনাস্থলে আসেন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহাবুব আলম। পরিস্থিতি শান্ত করে পুলিশের দুই সদস্যকে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

ঘটনার পরদিন সোমবার (২৬ জুলাই) ঘটনাস্থলে আসেন কুড়িগ্রামের পুলিশ সুপার সৈয়দা জান্নত আরা। তিনি স্থানীয় লোকজন ও পুলিশ সদস্যদের সাথে কথা বলে পুলিশকে মামলা করার নির্দেশ দেন। পরে ১২ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞান অনেককে আসামি করে সরকারি কাজে বাধাদানের অভিযোগ এনে মামলা করে পুলিশ। মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কচাকাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহাবুব আলম।

কুড়িগ্রামের পুলিশ সুপার সৈয়দা জান্নত আরা জানান, কিছু লোক অতি উৎসাহী হয়ে লোকজনের মাঝে ভ্রান্তিমূলক কথা ছড়িয়ে পরিস্থিতি উত্তপ্ত করেছে। মূলত তারা সরকারি কাজে বাধা দেওয়ার অপরাধ করেছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।
 

Link copied!