• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল, ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১, ১৩ শাওয়াল ১৪৪৫

ভারতে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা প্রসঙ্গে যা বললেন মমতাজ


সংবাদ প্রকাশ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: আগস্ট ১৬, ২০২৩, ০৮:৩৪ পিএম
ভারতে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা প্রসঙ্গে যা বললেন মমতাজ

সংগীতশিল্পী ও সংসদ সদস্য মমতাজ বেগমের বিরুদ্ধে ভারতের বহরমপুর আদালতের একটি মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে মর্মে ইতোপূর্বে খবর প্রকাশিত হয়েছে। বিশ্বাসভঙ্গ, প্রতারণাসহ একাধিক মামলার পরিপ্রেক্ষিতে তার বিরুদ্ধে এই পরোয়ানা জারি করেছেন ভারতীয় আদালত।

২০০৮ সালে মমতাজের বিরুদ্ধে মামলাটি করেন ভারতের ইভেন্ট অর্গানাইজার শক্তিশঙ্কর বাগচী।

বাগচীর অভিযোগ, ১৪ লাখ রুপির বায়না নিয়েও অনুষ্ঠানের যোগ দেয়নি মমতাজ। পরবর্তীতে সেই টাকাও ফেরত দেননি লোকগানের এই শিল্পী। বিষয়টি নিয়ে এবার কথা বলেছেন তিনি।

মমতাজের দাবি, ভারতের শক্তিশঙ্কর বাগচী নামে এক ব্যক্তি তার বিরুদ্ধে মিথ্যা ও হয়রানিমূলক মামলা করেছেন। সে মামলায় তিনি একাধিকবার হাজিরও হয়েছেন।

ফেসবুক পোস্টে মমতাজ বলেন, “আমার প্রিয় এলাকাবাসী ও সারা দেশে আমার গানের ভক্ত আশেকান এবং আমার শুভাকাঙ্ক্ষী যারা রয়েছেন, তারা কয়দিন ধরে একটা নিউজের পরিপ্রেক্ষিতে খুব মন খারাপ করে আছেন। এটার সত্যতা কতটুকু তা জানতে চাচ্ছেন। আমি বিদেশ ছিলাম, ১৪ আগস্ট দেশে ফিরেই ১৫ আগস্টের জাতীয় শোক দিবস নিয়ে খুব ব্যস্ত সময় কাটাই বলে এই বিষয়টি নিয়ে কথা বলার সুযোগ হয়ে ওঠেনি। হ্যাঁ, এই কথা সত্য যে বেশ অনেক বছর আগে ভারতে বহরমপুর কোর্টে আমার বিরুদ্ধে এক ব্যক্তি একটা মিথ্যা বানোয়াট মামলা করেন। যার মূল উদ্দেশ্যে ছিল আমাকে ভয় দেখিয়ে কিছু টাকা হাতিয়ে নেওয়া। আর ওই ব্যক্তি ছাড়া আমি যেন কারও মাধ্যমে ভারতে কোনো কনসার্ট করতে না পারি।”

হয়রানি করার জন্যই এই মামলা উল্লেখ করে মমতাজ বলেন, “কোনো ডকুমেন্ট ছাড়া ১৪ লাখ টাকা নেওয়ার একটি মিথ্যা মামলা উনি সাজিয়েছেন, যার কোনো প্রমাণ এই ১৪/১৫ বছরে কোর্টে দাখিল করতে পারেনি। এই বছর আমি ২ বার কোর্টে হাজির হই। কিন্তু দুঃখের বিষয় মামলার বাদি ২ বারই অসুস্থ বলে কোর্টে অনুপস্থিত থাকেন। তার মূল উদ্দেশ্যে হলো আমাকে হয়রানি করা। আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে দ্রুত এই মামলাটি যেন শেষ হয় বিজ্ঞ আদালতকে অনুরোধ করি। কিন্তু আদালত শেষ যে তারিখটি দিয়েছিল ওই সময় আমার আগে থেকেই কানাডায় একটা প্রোগ্রাম নেওয়া ছিল বিধায় আমি উপস্থিত থাকতে পারিনি। তবে আমি আদালতকে এই বিষয়ে অবহিত করি এবং পরবর্তীতে একটা সময় চাইলে বিজ্ঞ আদালত সেটা গ্রহণ করে আমাকে সেপ্টেম্বরের ৮ তারিখ পুনরায় তারিখ দেন। আশা করি, আমি ৮ তারিখে হাজির হলে বিজ্ঞ আদালত একটা সিদ্ধান্ত নেবেন এবং পরবর্তী কি করণীয় তা জানতে পারব।”

মমতাজ আরও বলেন, “জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে আমার বিরুদ্ধে অনেক ষড়যন্ত্র হচ্ছে। আপনারা সবাই আমার ওপর আল্লাহর ওয়াস্তে এই আস্থা-বিশ্বাস রাখবেন এবং আমার জন্য দোয়া করবেন; আমি যেন কারও ক্ষতি না করি। সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন।”

Link copied!